প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন নিয়ম ২০২৪

স্বপ্ন দেখা সহজ, কিন্তু স্বপ্ন পূরণ করা কঠিন। বিশেষ করে যখন স্বপ্নটা হয় বিদেশ ভ্রমণের, তখন টাকার অভাবে অনেকের স্বপ্নই থেমে যায়। কিন্তু চিন্তা নেই, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক আছে আপনার পাশে।

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন নিয়ম ২০২৪




প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক বাংলাদেশের জনপ্রিয় লোন প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে অন্যতম। বিদেশ যাওয়ার স্বপ্ন পূরণে সহায়তা করার জন্য এই ব্যাংক বিশেষভাবে অভিবাসন ঋণ প্রদান করে থাকে।

এই লেখাটিতে আমরা প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের লোন নিয়ম এবং লোন সম্পর্কিত যাবতীয় তথ্য সহজ ভাষায় তুলে ধরব।

ইদ মোবাইল অফার ২০২৪

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে কত টাকা লোন নেওয়া যায়?

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক ১,০০,০০০ থেকে ৫০,০০,০০০ টাকা পর্যন্ত ঋণ প্রদান করে। আপনার প্রয়োজনের উপর নির্ভর করে আপনি নির্দিষ্ট ঋণের পরিমাণের জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে আপনার লোন এর ধরন হিসেবে নির্দিষ্ট পরিমান টাকা পাবেন। যেমন, 

  1. অভিবাসন লোন নিলে, ১ থেকে ৩ লক্ষ টাকা পাবেন।
  2. বঙ্গবন্ধু অভিবাসী বৃহৎ পরিবার লোন নিলে, সর্বোচ্চ ১০ লক্ষ টাকা পাবেন।
  3. পূর্ণবাসন লোন নিলে, সর্বোচ্চ ৫০ লক্ষ টাকা পাবেন। 

ঋণের মেয়াদ কতদিন থাকবে?

আপনি যখন প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে লোন নিবেন তখন সেই লোনের নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকবে। উক্ত সময়ের মধ্যে বাধ্যতামূলক লোন পরিশোধ করে দিতে হবে।

  • অভিবাসন ঋণ- সর্বোচ্চ ২ বছর।
  • পূর্ণবাসন ঋণ- সর্বোচ্চ ১০ বছর।
  • বঙ্গবন্ধু অভিবাসী বৃহৎ পরিবার ঋণ-ড় সর্বোচ্চ ১০ বছর (আনুমানিক)।

🟨 সুদের হার: প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক সব ধরনের লোনের সুদের হার ৯%.

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন নিয়ম ২০২৪

বর্তমান সময়ে খুব সহজ শর্তে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে লোন নেওয়া সম্ভব। তবে তার আগে  আপনাকে পিকেবির সকল শর্ত মানতে হবে এবং প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস দিয়ে আবেদন করতে হবে। আর এই যাবতীয় কাজ গুলো আপনি আপনার নিকটস্থ পিকেবি শাখায় যোগাযোগ করে সম্পন্ন করতে পারবেন।

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন অনলাইন আবেদন

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক বিভিন্ন ধরণের ঋণ সুবিধা প্রদান করে। তাই অনেকেই জানতে চান, অনলাইনে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকে ঋণের জন্য আবেদন করা সম্ভব কিনা।

তো বর্তমানে অনলাইনে ঋণের জন্য আবেদন করার সুবিধা নেই। তবে, আশা করা যায় ঋণ আবেদনের প্রক্রিয়া অনেক সহজ করে তোলার জন্য অনলাইন আবেদন চালু করবে।

তাই এই মুহূর্তে আপনি শুধুমাত্র অনলাইনে ঋণ আবেদন ফর্ম ডাউনলোড করে এবং তারপর সেই ফরমে প্রয়োজনীয় তথ্য পূরণ করে সরাসরি ব্যাংক শাখায় জমা দিতে পারবেন।

নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিজপত্রের দাম জানতে ভিজিট করুন: আজকের দাম

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক কোথায় আছে?

বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে অনেক প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক শাখা আছে। নিচের তালিকা তে বাংলাদেশের সকল বিভাগের প্রাবাসী কল্যাণ ব্যাংক এর ঠিকানা দেওয়া হলো। 

PKB- branch list of all divisions

🔶 বাংলাদেশের সকল বিভাগের পিকেবির শাখা দেখুনঃ Click Here.

তবে যদি আপনার এই তালিকা দেখার সময় না থাকে তাহলে একটি টিপস ফলো করবেন। সেজন্য প্রথমে আপনার মোবাইল থেকে লোকেশন অন করবেন। তারপর গুগলে গিয়ে লিখবেন, “Probashi Kallyan Bank near me”. তাহলে আপনি খুব সহজে নিকটস্থ শাখা খুজে পাবেন। 

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন আবেদন ফরম

  • লোন আবেদন ফরম ডাউনলোড (pdf): Click Here.

প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন নিতে কি কি লাগে?

আমরা সবাই জানি এই ব্যাংক থেকে মোট ০৩ ধরনের লোন দেওয়া হয়। আর আপনার লোনের উপর ভিত্তি করে নির্দিষ্ট কাগজপত্র জমা দিতে হবে। যা নিচের তালিকায় শেয়ার করা হলো। যেমন, 

পূর্ণবাসন লোনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি ও ৩ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • জমির মালিকের ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি ও ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি
  • আবেদনকারী ও জমির মালিকের পৌরসভা বা ইউনিয়ন কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিক সনদপত্র
  • ট্রেড লাইসেন্সের ফটোকপি (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)
  • জামানত সম্পত্তির ডকুমেন্টসের ফটোকপি
  • ঋণ গ্রহীতার বিনিয়োগের ঘোষণাপত্র (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)
  • ঋণ গ্রহীতার স্বাক্ষর সহ তার ব্যাংক একাউন্টের ৩টি চেক পাতা
  • বিদেশ থেকে প্রত্যাবর্তন সংক্রান্ত ডকুমেন্টস (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)
  • প্রকল্পের সকল তথ্য সহ গত ২ বছরের আয় ও ব্যয়ের বিবরণী

অভিবাসন লোনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি
  • নাগরিক সনদপত্র (প্রয়োজন অনুসারে)
  • পাসপোর্ট সাইজের ৪ কপি ছবি
  • দুইজন জামিনদারের সকল তথ্য
  • ভিসা, পাসপোর্ট এবং বিএমইটি কার্ডের ফটোকপি
  • প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকে একটি সঞ্চয়ী হিসাব
  • জামিনদারদের স্বাক্ষরিত ব্যাংকের ৩টি চেক

বঙ্গবন্ধু অভিবাসী বৃহৎ পরিবার লোনের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র

  • আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয়পত্রের ফটোকপি ও ৩ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • ট্রেড লাইসেন্স (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।
  • জমির মালিকের ভোটার আইডি কার্ডের ফটোকপি ও ২ কপি পাসপোর্ট সাইজের ছবি।
  • ব্যবসা/প্রকল্পের স্থান ভাড়ার ক্ষেত্রে, লিজের চুক্তিপত্র।
  • আবেদনকারী ও জমির মালিকের পৌরসভা/ইউনিয়ন কর্তৃক প্রদত্ত নাগরিক সনদপত্র।
  • প্রকল্পের ১ বছরের আয়-ব্যয় বিবরণী ও বিস্তারিত তথ্য।
  • ৩টি চেকের পাতা স্বাক্ষর করে ব্যাংকে জমা।
  • প্রশিক্ষণ সনদপত্র (প্রযোজ্য ক্ষেত্রে)।

পিকেবি লোন নেওয়ার সুবিধা কি কি?

বিদেশে কর্মরত প্রবাসীদের রেমিট্যান্স আমাদের দেশের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। আর তাদের এই অবদানকে আরও কার্যকর করতে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক বিভিন্ন ধরণের ঋণ প্রদান করে থাকে। মনে রাখবেন, প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক ঋণ কেবল সহজলভ্য নয়, বরং এর অনেক সুবিধা রয়েছে। যেমন, 

  1. সহজ শর্তাবলীঃ ঋণ গ্রহণের জন্য জটিল কোনো প্রক্রিয়া নেই। সহজ কিছু শর্তাবলী পূরণ করলেই আপনি ঋণ পেয়ে যাবেন।
  2. কম সুদের হারঃ বাজারের অন্যান্য ব্যাংক এর তুলনায় প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক এর সুদের হার অনেক কম।
  3. দীর্ঘমেয়াদী ঋণঃ এই ব্যাংকের ঋণের মেয়াদ দীর্ঘ। যার কারণে ঋণ পরিশোধ করা সহজ হবে।
  4. দ্রুত ঋণ প্রদানঃ আপনার আবেদনপত্র যাচাই-বাছাই করে দ্রুত ঋণ পাওয়া যায়।
  5. বিভিন্ন ধরণের ঋণঃ প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক বিভিন্ন ধরণের ঋণ প্রদান করে।
  6. প্রশিক্ষণের সুযোগঃ ঋণ গ্রহীতাদের জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা পাওয়া যায়।
  7. কারিগরি সহায়তাঃ ঋণ গ্রহীতাদের ব্যবসা-বাণিজ্য পরিচালনায় কারিগরি সহায়তা প্রদান করা হয়।
  8. রিহাইট প্রোগ্রামঃ ঋণ পরিশোধে অনিয়মিত হলে ঋণ গ্রহীতাদের জন্য রিহাইট প্রোগ্রামের সুযোগ রয়েছে।

কোনো ব্যাংক থেকে লোন নেওয়ার পর গ্রাহকরা যেসব সুবিধা চায় তার সবগুলোই এই ব্যাংক থেকে পাবেন। কারণ, তারা প্রবাসীদের সকল সুবিধা দিতে সর্বদা প্রস্তুত। 

FAQ - Pravasi Kalyan Bank Loan

Q: প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক সরকারি কি?

A:প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক হচ্ছে বাংলাদেশের একটি অনন্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান। যা বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশীদের জন্য বিশেষ ভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে। রাষ্ট্র কর্তৃক পরিচালিত এই ব্যাংক প্রবাসীদের অর্থনৈতিক উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে।

Q: প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক থেকে কত টাকা লোন দেয়?

A: এই ব্যাংক থেকে তিন থেকে পাঁচ লাখ টাকা পর্যন্ত লোন নেওয়া যায়। 

Q: প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের স্লোগান কি?

A: ''দেশে ও বিদেশে, আপনার পাশে”।

Q: প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের পরিচালক কে?

A: রাষ্ট্রায়ত্ত প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংকের এমডি হিসেবে যোগদান করেছেন মো. মজিবর রহমান। এর আগে তিনি সোনালী ব্যাংক লিমিটেডের ডিএমডি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

Q: PKB কি?

A: PKB- এর পূর্ণরূপ হল Probashi Kallyan Bank. বাংলায় “প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক”।

Q: প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক হাউজ লোন কি?

A: দেশের উন্নয়নের অংশীদার করে তুলতে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক 'পূর্ণবাসন ঋণ' প্রদান করে থাকে। এই ঋণের মাধ্যমে প্রবাসীরা দেশে তাদের স্বপ্নের ঘর তৈরি করতে পারবেন। অথবা আপনি এই ঋণের টাকা দিয়ে ব্যবসায়িক কাজে বিনিয়োগ করতে পারবেন।

আপনার জন্য আমাদের শেষকথা

আজকের আর্টিকেলে প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংক লোন নিয়ম গুলো শেয়ার করা হয়েছে। তবে এই লোন নিয়ে যদি আপনি আরো কিছু জানতে চান তাহলে আপনার প্রশ্নটি নিচে কমেন্ট করুন। আর প্রবাসীদের সকল আপডেট পেতে আমাদের সাথে থাকুন। ধন্যবাদ।

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post